মুচির মেয়ে উচ্চমাধ্যমিকে ৯৭% নম্বর পেয়ে রাজ্যে তৃতীয়

বেকার জীবনবেকার জীবন
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  10:43 AM, 30 July 2020
বাবা ফুটপাতে জুতো সেলাই করেন, মেয়ে উচ্চমাধ্যমিকে ৯৭% নম্বর পেয়ে রাজ্যে তৃতীয়

মধ্য প্রদেশের শেওপুরের হরিজন বস্তির দুটো কামরা। কোন রকমে মাথা গোঁজার ঠাঁই টুকু নিয়ে দিন কাটাতে হয়। মা-বাবা আর ৬ ভাই বোনকে নিয়ে সংসার। তবুও বড় হয়ে চিকিৎসক হওয়ার স্বপ্ন দেখে মধু। স্বপ্ন পূরণের লক্ষ্যে বহুদিন ধরে লড়াই চালিয়ে এসেছে সে। গতকাল মধ্যপ্রদেশ বোর্ডের দ্বাদশ শ্রেণির পরীক্ষার ফল প্রকাশিত হয়েছে। আর তাতেই ৯৭ শতাংশ নম্বর পেয়ে পরিবারের মুখ উজ্জ্বল করেছে সে। ১৭ বছরের মধু আর্যের বাবা কানহাইয়ালাল পেশায় একজন মুচি। স্থানীয় ফুটপাত এবং

বাসস্ট্যান্ডে তিনি জুতোসেলাই এর কাজ করেন। বিজ্ঞান বিভাগে মধু ৫০০-র মধ্যে পেয়েছে ৪৮৫ নম্বর। সে মেধা তালিকায় তৃতীয় স্থান অধিকার করে নিয়েছে। রোজ ভোর চারটেয় ঘুম থেকে উঠত মধু। প্রত্যেকদিন ৮ থেকে ১০ ঘন্টা ধরে পড়াশোনা করত সে। লকডাউন ফলে দেশজুড়ে বন্ধ স্কুল কলেজ। এই সময় বহু ছাত্রছাত্রী সোশ্যাল মিডিয়া কিংবা গেমস খেলতে ব্যাস্ত।লকডাউনে অন্যদিকে মধু এই লকডাউনের সমগ্র সময়টিকে পড়াশোনার কাজে লাগিয়েছে। বর্তমানে সে ডাক্তারি প্রবেশিকা

পরীক্ষার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে। সে জানিয়েছে, তাদের অভাবের সংসার। সংসার খরচ যেমন তেমন করে চলে গেলেও, সরকার যদি তাকে পড়াশোনার জন্য বিন্দুমাত্র সাহায্য করে তবে সে খুবই উপকৃত হবে। বড় হয়ে চিকিৎসক হয়ে মা বাবার মুখ উজ্জ্বল করতে চাই মধু। ঘুচিয়ে দিতে চায় সমস্ত দুঃখ।মধ্য প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিংহ চৌহান মধুকে টুইট করে অভিনন্দন জানিয়েছেন। মধুর স্বপ্ন পূরণের উদ্দেশ্য সফল করতে পাশে থাকার আশ্বাস দিয়েছেন মধ্যপ্রদেশের সরকার।

 আমাদের বিসিএস গ্রুপে যোগ দিন

আপনার মতামত লিখুন :