এসআই বাবা ও ক্যাপ্টেন মেয়ের স্যালুটের ছবি ভাইরাল

বেকার জীবনবেকার জীবন
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  12:19 PM, 03 August 2021

গত তিন দিন থেকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল একটি ছবি। ছবির পুরুষ ব্যক্তি একজন পুলিশের এসআই আর নারী একজন ক্যাপ্টেন। অভিনন্দন আর শুভেচ্ছা বার্তায় সিক্ত হচ্ছেন তারা।ফেসবুকে দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে অনুসন্ধানে জানা গেল, পুরুষ ব্যক্তি রংপুরের গঙ্গাচড়া মডেল থানার সাব-ইন্সপেক্টর আব্দুস সালাম। এবং নারী তারই মেয়ে ক্যাপ্টেন ডা. শাহনাজ পারভীন। ছুটিতে বাড়িতে এসে ডাক্তার ক্যাপ্টেন শাহনাজ তার এসআই বাবাকে স্যালুট জানান। এসআই বাবা ও মেয়ের স্যালুটের জবাবে স্যালুট জানান।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলা সদরে বাড়ি এসআই আব্দুস সালামের। হাজার ১৯৯০ সালে তিনি রংপুর পুলিশ ট্রেনিং সেন্টারে কনস্টেবল পদে যোগদান করেন। ১৯৯১ সালে তিনি খুলনা মেট্রোপলিটন কর্মজীবন শুরু করেন। এরপর দেশের বিভিন্ন থানায় কর্মরত থাকা অবস্থায় ২০১০ সালে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশে কর্মরত অবস্থায় এসআই পদে পদোন্নতি পান। বছর দেড়েক আগে যোগ দেন রংপুরের গঙ্গাচড়া মডেল থানায়।

এসআই আব্দুস সালামের তিন মেয়ের মধ্যে বড় শাহনাজ। কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী গার্লস স্কুল থেকে এসএসসি, ফুলবাড়ী ডিগ্রি কলেজ থেকে এইচএসসি পাশের পর রংপুর মেডিক্যাল কলেজে ৪৩ তম ব্যাচের শিক্ষার্থী হিসেবে শিক্ষাজীবন শুরু করেন। কৃতিত্বের সাথে উত্তীর্ণের পর গতবছর ইন্টার্নি শেষ করেন ডাক্তার শাহনাজ। চলতি বছর সেনাবাহিনীর ক্যাপ্টেন পদে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ হলে সেখানে আবেদন করেন তিনি। সকল পরীক্ষায় কৃতিত্বের সাথে উত্তীর্ণ হয়ে সেনাবাহিনীতে ক্যাপ্টেন পদে যোগদান করেন এই এসআই কন্যা। এসআই আব্দুস সালামের মেজো মেয়ে এমবিবিএস তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী আর ছোট মেয়ে রংপুর পুলিশ লাইন স্কুল অধ্যায়নরত।

সেনাবাহিনীতে ক্যাপ্টেন হিসেবে যোগ দিয়েই বাড়িতে আসেন ক্যাপ্টেন ডাক্তার শাহনাজ। এসেই তিনি তার বাবাকে পোশাক পরা অবস্থায় পান। বাবার প্রতি গভীর কৃতজ্ঞতা জানাতে তিনি প্রিয় বাবাকে স্যালুট জানান। ঘটনার আকস্মিকতায় বিমুগ্ধ হয়ে যান এসআই আব্দুস সালাম। তিনিও ডাক্তার ক্যাপ্টেন মেয়েকে স্যালুট জানান। অসাধারণ এই মুহূর্তটি পরিবারের একজন ক্যামেরাবন্দি করে সেটি ছেড়ে দেন ফেসবুকে। সেই জুবি ছবি এখন নেট দুনিয়ায় ভাইরাল। ভালোবাসার লাইক এবং মন্তব্যে তোলপাড় এখন এই ছবিটি

গংগাচড়া মডেল থানার এসআই আবদুস সালাম জানান, শিক্ষা জীবনের প্রতিটি ধাপে আমার মেয়ে কৃতিত্বের সাথে শেষ করেছে। সেনাবাহিনীতে ক্যাপ্টেন হিসেবে যোগ দেয়ায় আমি মহান আল্লাহর কাছে গর্বিত। তিনি তার মেয়ের সুন্দর কর্মজীবন এবং ব্যক্তি জীবনের জন্য সবার কাছে দোয়া চেয়েছেন।

 আমাদের বিসিএস গ্রুপে যোগ দিন

আপনার মতামত লিখুন :