কাতারের যে স্টেডিয়ামের প্রধান প্রকৌশলী বাংলাদেশী ওয়াশিকুর রহমান

বেকার জীবনবেকার জীবন
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  09:00 PM, 19 November 2022

কাতারে আগামী ২০ নভেম্বর থেকে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে বিশ্বকাপ ফুটবল। প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণকারী ৩২টি দল ৮টি ভিন্ন ভিন্ন স্টেডিয়ামে খেলবে। এরমধ্যে আল-রাইয়ান শহরে অবস্থিত ‘এডুকেশন সিটি স্টেডিয়াম’ অন্যতম।স্টেডিয়ামটি নির্মাণে বিশেষ ভূমিকা রেখেছেন নীলফামারীর সন্তান কাতারপ্রবাসী প্রকৌশলী ওয়াশিকুর রহমান শুভ। তিনি এর নির্মাণকাজে কাঠামোগত প্রধান প্রকৌশলী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।

ওয়াশিকুর জেলার সৈয়দপুর পৌরসভার অন্তর্গত বাঁশবাড়ী মহল্লার শেখ নাজমুল হকের ছেলে। ৩ ভাইবোনের মধ্যে তিনি সবার বড়।কাতারের রাজধানী দোহা থেকে ৭ কিলোমিটার উত্তর-পশ্চিমে আল-রাইয়ান শহরের অবস্থান। এখানে ২০১০ সালে স্টেডিয়ামের নির্মাণকাজ শুরু হয়, তবে শেষ হতে দীর্ঘ ১০ বছর লেগে যায়।

কাতার থেকে ওয়াশিকুর মুঠোফোনে স্থানীয় সাংবাদিকদের জানান, ২০২০ সালে স্টেডিয়ামের নির্মাণকাজ শেষ হলে করোনা মহামারির বিরুদ্ধে সম্মুখসারির যোদ্ধাদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে ভার্চুয়াল ইভেন্টের মাধ্যমে স্টেডিয়ামটির উদ্বোধন করা হয়।

প্রবাসী এই কৃতি প্রকৌশলীর বাবা নাজমুল হক দ্য ডেইলি স্টারকে বলেন, ‘ওয়াশিকুর সৈয়দপুর রেলওয়ে উচ্চবিদ্যালয় থেকে ১৯৯২ সালে এসএসসি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়। ১৯৯৪ সালে সে সৈয়দপুর ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল ও কলেজ থেকে কৃতিত্বের সঙ্গে এইচএসসি পাশ করে খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে পুরকৌশল বিভাগে ভর্তি হয়।’

খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর সম্পন্ন করে ওয়াশিকুর কাতারে পাড়ি জমান। সেখানে তিনি যুক্তরাজ্যের এটকিস-ইউকে, কানাডার এসএনসি লাভালিনসহ একাধিক আমেরিকান ও ইউরোপিয়ান কনসালটিং ফার্মে কাঠামোগত ডিজাইনার হিসেবে কাজ করেন।

বর্তমানে তিনি কাতারের লুইস সিটিতে ওয়াটার পার্ক প্রকল্পে স্ট্রাকচারাল ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে কাজ করছেন। এই পার্কটি কাতার ফুটবল বিশ্বকাপে দর্শকদের জন্য নির্মিত ফান জোনের একটি অংশ হিসেবে ব্যবহৃত হবে।এই ফান জোনে থাকছে বিলাসবহুল একাধিক হোটেল ও মোটেল, ভিলা, শপিংমল, ওয়াটারপার্ক, থিমপার্ক ও আরও অনেক কিছু।

আপনার মতামত লিখুন :