চাকুরীর ইন্টারভিউতে ভালো করার উপায়

বেকার জীবনবেকার জীবন
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  04:27 AM, 09 July 2020
চাকুরীর ইন্টারভিউতে ভালো করার উপায়

যা উত্তর দিবেন তা আত্মবিশ্বাসের সাথে দিন। কোম্পানি আত্মবিশ্বাসী কর্মী চায় চাকুরীর ইন্টারভিউ নিয়ে টেনশন করেন না এমন মানুষ খুজে পাওয়া খুব কষ্টকর। কিন্তু সঠিক প্রন্তুতি না নেবার কারনে চাকুরী হয়না, এমন মানুষের সংখ্যাই বেশি। চাকুরীর ইন্টারভিউ এ কি করে ভাল করা যায় তার আগে আসুন জেনে নেই কি কারনে আমারা ইন্টারভিউ বোর্ড এর মনোযোগ আকর্ষন করতে পারিনা। ফরমাল না হওয়া বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে ফরমালভাবে ইন্টারভিউ না দিলে আপনি চাকুরীটা পাবেন

না ধরে নিতে পারেন। জিন্স প্যান্ট, গ্যাবাডিং প্যান্ট, কালারফুল প্যান্ট ও শার্ট পরে ইন্টারভিউ দিতে গেলে আপনি অস্বস্তিতে পড়তে পারেন। পরিপাটি না হওয়া সঠিকভাবে সু পালিশ না থাকলেই বিপদ। তাছাড়া সঠিকভাবে চুল না কাটা থাকলে, মুখে খোচা খোচা দাড়ি খাকলে, হাতের নখ বড় খাকলে, দাঁত পরিস্কার না থাকলে বিপদে পড়বেন। তাছাড়া শার্ট ও প্যান্ট যথাযথভাবে পরিস্কার করা না থাকলে ও সঠিকভাবে আইরন করা না থকলেও বিপদ। গায়ে দুর্গন্ধ থাকলেও চাকুরীটা হবার

সম্ভবনা কম। মেয়েদের পোশাক মার্জিত না হলে বিপদ। প্রাসঙ্গিক ক্যারিয়ার প্লান না থাকা বোর্ড যদি বুঝতে পারে আপনি শুধুমাত্র বর্তমানের প্রয়োজন মেটাবার জন্য চাকুরীতে যোগদান করতে চাচ্ছেন, চাকুরীটা আপনার হবেনা ধরে নিতে পারেন। যে পদের জন্য আবেদন করেছেন তা সম্পর্কে যঠেষ্ট অবগত না থাকাঃ ধরুন আপনি ইন্টারভিউ তে প্রশ্ন করলেন, আপনার কাজ কি হবে। তাহলে আপনি পড়তে পারেন মহাবিপদে। তাছাড়া যে প্রতিষ্ঠানে ভাইভা দিতে যাবেন সে প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে যথেষ্ট জ্ঞান

না থাকলেও বিপদে পড়তে পারেন। নেতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি সকল ক্ষেত্রে নেতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি দেখালে আপনার চাকুরীটা হবেনা। সুন্দরভাবে গুছিয়ে উত্তর না দেওয়া সুন্দরভাবে গুছিয়ে উত্তর না দিলে বিপদে পড়বেন নিশ্চিত।মন্থর উত্তর দেওয়া ও সিদ্ধান্ত দেওয়াঃ আপনাকে বিভিন্ন কেস ষ্টাডি দিয়ে সমাধান চাওয়া হতে পারে। আপনি যদি সমাধান দিতে যথেষ্ট দেরি করেন তাবে আপনাকে দিয়ে কোম্পনী তার কার্য সম্পাদন করতে পারবে কিনা তা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করতে পারে। এবার আসুন আমারা

সমাধানের চেষ্টা করি। আপনি ইন্টারভিউতে ভালো করার জন্য নিম্নলিখিত কাজগুলো করতে পারেন- প্রস্তুতি গ্রহণ করুন সঠিক পরিশ্রম সৌভাগ্য আনয়ন করে। আপনি ইন্টারভিউ এর জন্য যঠেষ্ট ভাল প্রস্তুতি না নিয়ে ভাল করবেন তা ভাবা বৃথা। ইন্টারভিউতে যে সমস্ত প্রশ্ন করা হয় তা মূলত মৌলিক প্রশ্ন আপনার সম্পর্কে কিছু বলুন। শুরুতেই আপনাকে এ প্রশ্নের উত্তর দিতে হবে। তাই এ বিষয়ে প্রস্তুতি নিতে হবে যাতে সুন্দরকরে ইংরেজী বা বাংলায় (যেটা প্রয়োজন) উত্তর দিতে পারেন। এখানে

আপনার হবি কি তা যতটা না জরুরী তার চাইতে বেশি জরুরী আপনার ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা কি। তাই আপনার নাম থেকে শুরু করে পর্যায়ক্রমে নিজ জেলা, সর্বোচ্চ দুটি শিক্ষাগত যোগ্যতা, বর্তমানে কি করছেন এবং ভবিষ্যতে কি করতে চান তা বলতে হবে। ভবিষ্যত পরিকল্পনা অবশ্যই চাকুরীর সাথে সম্পর্কিত হতে হবে। আর হ্যা, আপনাকে ইন্টারভিউতে সুযোগ করে দেবার জন্য ধন্যাবাদ জানাতে ভুলবেন না। তারপর আপনি কেন এই চাকুরিতে আগ্রতী হলেন তা সম্পর্কে বলার প্রস্তুতি থাকতে হবে। বিষয়ভিত্তিক প্রশ্ন আপনি যে বিষয় নিয়ে পড়াশোনা করেছেন তার খুব মৌলিক বিষয়গুলোর প্রস্তুতি উত্তর দেবার জন্য

প্রস্তুতি গ্রহণ করতে হবে। চাকুরী সম্পর্কিত প্রশ্ন আপনি যে পদে আবেদন করেছেন তার কাজের ধরন জানতে হবে। চাকুরীর বিজ্ঞপ্তিতে যে কাজের ধরন দেওয়া আছে তার সবগুলো পড়াশোনা করে চাকুরীর ভাইভা দিতে গেলে ভালো ফলাফল পাওয়া যাবে। আইকিউ আইকিউ নিয়ে প্রশ্ন হবেই, তাই এ নিয়ে প্রস্তুতি নিতে হবে। নিজের গ্রুম আপ করুন ভাইভাতে অংশগ্রহণ করার পূর্বে মাখার চুল, হাতের নখ কেটে নিন। ক্লিন সেভ করুন (যদি আপনি দাড়ি না রাখেন)। দাড়ি রাখলে তা সুন্দরভাবে গুছিয়ে

নিন। পরিস্কার আইরন করা পোষাক পরিধান করুন। আর ডার্ক কালারের প্যান্ট পরুন সাথে এককালার ফুলহাতার শার্ট (খুব রংচঙে পরিহার করুন)। আর সু পালিশ ও মাখায় চিরুনী করতে ভুলবেন না। হালকা পারফিউম ব্যবহার করুন। মেয়েরা সুন্দরভাবে জুল গুছিয়ে নিন। আর মার্জিত পোশাক পরুন। শাড়িও পরতে পারেন। হালকা গয়না পরতে পারেন। খুব ভারী মেকআপ পরিহার করা উচিত। গুছিয়ে কথা বলুন প্রশ্নকর্তার প্রতিটি প্রশ্নের উত্তর সুন্দরভাবে গুছিয়ে উত্তর দিন। খুব

তাড়াহুড়ো করবেন না আবার খুর দেরিও করবেন না। কোন প্রশ্নের উত্তর না জানলে সুন্দরভাবে পাশ বলুন। না জানলে বানিয়ো উত্তর দিতে যাবেন না। আই কন্টাক্ট করুন প্রশ্নকর্তার সাথে আই কন্টাক্ট করুন। বোর্ডে একাধিক সদস্য থাকলে যিনি যে প্রশ্ন করেছে তার দিকে তাকিয়ে উত্তর দিন। একই প্রশ্ন একধিক ব্যাক্তি করলে সাবার সাথে আই কন্টাক্ট করুন। নিজের সবল ও দূর্বল দিক সম্পর্কে জানুন আপনার সবল ও দূর্বল দিক সম্পর্কে জানুন। এমনভাবে দূর্বল দিক বলুন যা বোর্ড পজিটিভলি

নেবে। সিভি সম্পর্কে ধারনা রাখুন আপনি সিভিতে যা যা লিখেছের তার প্রত্যেকটি তথ্যের ব্যাখ্যা দেওয়ার জন্য প্রস্তুক থাকুন। আত্মবিশ্বাস রাখুন যা উত্তর দিবেন তা আত্মবিশ্বাসের সাথে দিন। কোম্পানি আত্মবিশ্বাসী কর্মী চায়। ধন্যবাদ জ্ঞাপন করুন একটি পদের বিপরীতে অনেক মানুষ আবেদন করে। তাই ভাইভার শেষে ধন্যবাদ দিতে ভূলবেন না। লেখকঃ মো. আমিনুল ইসলাম সহকারী ব্যবস্থাপক (এইচআরএম) ভিপিএস গ্লোবাল

 আমাদের বিসিএস গ্রুপে যোগ দিন

আপনার মতামত লিখুন :