প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জন্য নতুন নীতিমালা

বেকার জীবনবেকার জীবন
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  08:09 PM, 19 January 2021
ছুটির মধ্যেই প্রাথমিক শিক্ষকদের কাছে যেসব তথ্য চেয়েছে সরকার

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় দৃষ্টিনন্দন করার উদ্যোগের অংশ হিসেবে এবার সারাদেশে প্রতিটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বৃক্ষরোপণে একটি অভিন্ন নীতিমালা করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতর। নীতিমালার আলোকে বিদ্যালয়ের ভূমির সর্বোচ্চ ব্যবহার নিশ্চিত করে বৃক্ষরোপণ করা হবে। যেখানে সেখানে গাছ লাগানো এবং ক্ষতিকর গাছ লাগানো যাবে না। খেলার মাঠ

উন্মুক্ত রাখতে হবে। বিদ্যালয় দৃষ্টিনন্দন করতে সুনির্দিষ্ট নিয়ম মেনে গাছ লাগানোর এসব বিধান রাখা হবে নীতিমালায়। সংশ্লিষ্ট সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।প্রসঙ্গত, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় দৃষ্টিনন্দন করার অংশ হিসেবে প্রতিটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের আদলে প্রতিটি বিদ্যালয়ে একইরকম শহীদ মিনার করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বৃক্ষরোপণ নীতিমালার বিষয়ে জানতে চাইলে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালক আলমগীর মুহম্মদ মনসুরুল আলম বলেন, ‘সুনির্দিষ্ট নীতিমালা না থাকায় যত্রযত্র গাছে লাগানো হয়। ক্ষতিকর বৃক্ষও রোপণ করা হয়ে থাকে। খেলার মাঠের মাঝখানেও গাছ লাগানো হয়। অল্প জায়গায় পরিকল্পিতভাবে বৃক্ষরোপণ না করায় বিদ্যালয়ের

মাঠ ও ভূমি আঙিনার যথাযথ ব্যবহার করা যায় না। তাই একটি নীতিমালা করা হবে। নীতিমালা অনুযায়ী প্রতিটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বৃক্ষরোপণ করতে হবে। ‘প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতর সূত্রে জানা গেছে, গত ডিসেম্বরের সমন্বয় সভায় বৃক্ষরোপণের জন্য একটি অভিন্ন নীতিমালা প্রণয়ন করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। সমন্বয় সভায় জানানো হয়, বিপন্ন প্রজাতির বিভিন্ন ধরনের

ফলের গাছ রোপণ করে ছাদ-বাগান করা হয়েছে। বৃক্ষরোপণের ক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠানের জন্য ক্ষতিকর বৃক্ষ পরিহার করা এবং ভবন থেকে নির্দিষ্ট দূরত্ব বাজায় রাখার বিষয়টিকে গুরুত্ব আরোপ করে মাঠ পর্যায়ে পত্র পাঠানো হয়েছে। এই আলোচনার পর বৃক্ষ রোপণের বিষয়ে একটি অভিন্ন নীতিমালা তৈরি করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। নীতিমালা তৈরির বিষয়টি বাস্তবায়নের জন্য দায়িত্ব দেওয়া হয় উপ-পরিচালক সংস্থাপনকে।

 আমাদের বিসিএস গ্রুপে যোগ দিন

আপনার মতামত লিখুন :