প্রাথমিক বিদ্যালয় খোলা ও পরীক্ষা নিয়ে যা বললেন গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী

বেকার জীবনবেকার জীবন
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  04:45 PM, 12 August 2020

প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রী মো. জাকির হোসেন বলেছেন, করোনা মহামারি শেষে সেপ্টেম্বরে স্কুল খুললে পিইসি কেন্দ্রীয়ভাবে সীমিত পরিসরে, এর পরে খুললে স্কুলে স্কুলে ৫০ নম্বরের এমসিকিউ পরীক্ষা নেয়ার চিন্তাভাবনা করছে সরকার। তবে এক্ষেত্রে অটো পাসের কোনো চিন্তা আপাতত সরকারের নেই।বুধবার সচিবালয়ে নিজ দপ্তরে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে প্রতিমন্ত্রী এ কথা জানান। তিনি বলেন, ‘আমাদেরতো পরীক্ষা নেয়ার চিন্তা-ভাবনা আছেই। পিইসি পরীক্ষা নিতে হলে পাঠদানের যে সময়টা

আছে, সেই সময়টাতো আর পাচ্ছি না। আমরা যদি সেপ্টেম্বরের দিকে স্কুল খুলে দিতে পারতাম তাহলে শর্ট সিলেবাসে একটা পরীক্ষা নেয়ার চিন্তা-ভাবনা আমাদের ছিল। এখন যেহেতু সেপ্টেম্বরে স্কুল খুলতে পারব কিনা আমরাতো বলতে পারছি না।’ অক্টোবর-নভেম্বরের দিকে স্কুল খুললে তখন প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষার বিষয়ে কী সিদ্ধান্ত নেয়া হবে- জানতে চাইলে জাকির হোসেন বলেন, ‘আমরা মূল্যায়নের ভিত্তিতে স্কুলে স্কুলে পরীক্ষা নেয়ার চিন্তা-ভাবনা করছি এখন। তখন হয়তো ৫০ নম্বরের

পরীক্ষা হবে। যদি সম্ভব হয় এমসিকিউ আমরা করতে পারি।’ প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘পরীক্ষা আমরা রাখব, পরীক্ষার কোনো বিকল্প নেই।’ নভেম্বরের মধ্যে যদি স্কুল খোলা না যায় তখন কী হবে- এ বিষয়ে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘তখন বিকল্প ব্যবস্থা করা হবে। আমাদের অটো পাসের কোনো চিন্তা নেই। আমরা আগামী সপ্তাহে আমাদের পরিকল্পনাগুলো, তিনটি পরিকল্পনা প্রধানমন্ত্রীর কাছে পাঠাব। তিনি যেটা মূল্যায়ন করবেন, আমাদের সিদ্ধান্ত দেবেন- সেটাই আমরা বাস্তবায়ন করব। পরীক্ষা নেয়া হবে না বা

হবে, এমন কোনো সিদ্ধান্ত নেই। এছাড়া অন্যান্য শ্রেণির বার্ষিক পরীক্ষা হবে বলেও জানান প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী। প্রসঙ্গত, করোনাভাইরাসের বিস্তার রোধে গত ১৭ মার্চ থেকে দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। কয়েকদফা ছুটি বাড়িয়ে তা আগামী ৩১ আগস্ট পর্যন্ত করা হয়েছে। শিক্ষার্থীদের ক্ষতি পুষিয়ে নিতে সংসদ টেলিভিশন এবং অনলাইনে পাঠদান কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছে সরকার। তথ্যসূত্রঃ বাংলাদেশ জার্নাল

 আমাদের বিসিএস গ্রুপে যোগ দিন

আপনার মতামত লিখুন :