মানসম্পন্ন সব স্কুল জাতীয়করণের সুপারিশ

বেকার জীবনবেকার জীবন
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  02:09 PM, 27 July 2021

মানসম্মত দেশের সব স্কুল এমপিওভুক্তি ও জাতীয়করণের সুপারিশ করেছে পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়সংক্রান্ত স্থায়ী কমিটি। কমিটি মনে করে, যাদের (স্কুল) পাঠদানের অনুমতি দেওয়া হয়েছে, তাদের কয়েক বছর অপেক্ষায় না রেখে এমপিওভুক্ত করা উচিত।জাতীয় সংসদ সচিবালয়ে সম্প্রতি স্থায়ী কমিটির এই মিটিংয়ের কার্যপত্র থেকে এসব তথ্য জানা গেছে। সভায় কমিটির সভাপতি জামালপুর-১ আসনের সাংসদ আবুল কালাম আজাদের সভাপতিত্বে অন্য সদস্যরা এতে বক্তব্য দেন।

সভায় কমিটির সদস্য ও পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেন, বাজেটের যে অর্থ বেঁচে যায় তা দিয়ে যতদূর সম্ভব কিছু কোয়ালিফাইড স্কুল এমপিওভুক্ত করার ব্যবস্থা করতে হবে।তিনি বলেন, যাদের পাঠদানের অনুমতি দেওয়া হয়েছে, তাদের কয়েক বছর অপেক্ষায় না রেখে এমপিওভুক্ত করা উচিত। যেসব স্কুল কোয়ালিফাইড তাদের সরকারীকরণ করা এবং দ্বৈত পদ্ধতি থেকে সরে আসতে হবে।

কমিটির অপর সদস্য মেজর (অব.) রফিকুল ইসলাম বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার সর্বোচ্চ মান নিশ্চিত করার লক্ষ্যে ল্যাবরেটরিগুলোতে আধুনিক যন্ত্রপাতি সরবরাহ করার পাশাপাশি শিক্ষক ও কর্মকর্তাদের গবেষণা সহায়ক পরিবেশ তৈরি ও প্রশিক্ষণ প্রদানে যথাযথ উদ্যোগ গ্রহণ করতে হবে।তিনি বলেন, অনেক মন্ত্রণালয় আছে, বাজেটে যা বরাদ্দ দেওয়া হয় তা খরচ করতে পারে না। কোনো কোনো মন্ত্রণালয় আছে, যা প্রয়োজন তার চেয়ে কম বরাদ্দ পায়। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ও যা বরাদ্দ পেয়েছে, তা খরচ করতে পারেনি।

যারা সরকারি নির্দেশনা মানছে না তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, অনেক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পতাকা উত্তোলন হচ্ছে না। শুধু মাদ্রাসা নয়, কোনো স্কুল, কলেজ যদি এর যথাযথ ব্যবহার নিশ্চিত না করে তাহলে এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে।বিষয়টি নিয়ে দাবি রয়েছে শিক্ষকদের মাঝেও। মুজিববর্ষকে অবিস্মরণীয় ও চির অম্লান করে রাখতে শিক্ষাব্যবস্থা জাতীয়করণ ঘোষণার দাবিতে সম্প্রতি জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে শিক্ষক সমাবেশ করেছে বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতি ও এমপিওভুক্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান জাতীয়করণ লিয়াজোঁ ফোরাম।

সমাবেশে জানানো হয়, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের নিজস্ব আয় ফেরত নিয়ে শিক্ষাব্যবস্থা জাতীয়করণ করা হলে সরকারের রাজস্বে তেমন কোনো ঘাটতি হবে না। এছাড়া শিক্ষার গুণগত মান নিশ্চিত করণ এবং এসডিজি-৪ বাস্তবায়নে শিক্ষাব্যবস্থা জাতীয়করণের কোনো বিকল্প নেই। আর শিক্ষা জাতীয়করণ করা হলে সব থেকে বেশি লাভবান হবে দরিদ্র জনগোষ্ঠী।

 আমাদের বিসিএস গ্রুপে যোগ দিন

আপনার মতামত লিখুন :