সাধারণ একজন শিক্ষিকা থেকে করেছিলেন ক্যারিয়ার শুরু, আজ ২২ হাজার কোটি টাকার মালকিন

বেকার জীবনবেকার জীবন
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  05:58 AM, 24 November 2022

পৃথিবীর প্রতিটি মানুষই সফলতা পেতে চায় কিন্তু শুধু চিন্তা করলেই সাফল্য পাওয়া যায় না। এর জন্য জীবনে অনেক পরিশ্রম ও সংগ্রাম করতে হয়। কথিত আছে যে ব্যক্তি উচ্চাকাঙ্খী এবং কিছু করার জন্য দৃঢ়প্রতিজ্ঞ, সে তার গন্তব্যে ঠিক পৌঁছে যায়। অনেক প্রতিকূলতা সাফল্যের পথে বাধা হয়ে দাঁড়ায়। যে ব্যক্তি এই বাঁধাবিপত্তি অতিক্রম করে কঠোর পরিশ্রম ও নিরন্তর চেষ্টা চালিয়ে যায়, সে অবশ্যই তার পরিশ্রমের ফল পেয়ে থাকে।

একজন মহিলার সাফল্যের গল্প, যিনি একজন কোচিং শিক্ষক হিসাবে তার কর্মজীবন শুরু করেছিলেন। কিন্তু আজ তিনি দেশের দ্বিতীয় সর্বকনিষ্ঠ ধনী ব্যক্তি হিসাবে তালিকাভুক্ত হয়েছেন। “দিব্যা গোকুলনাথের” সাফল্যের কথা বলতে যাচ্ছি, যিনি অনলাইন শিক্ষা প্ল্যাটফর্ম ‘বাইজুস’-এর সহ-প্রতিষ্ঠাতা। তিনি একজন শিক্ষক হিসাবে কাজ করে এত অর্থ উপার্জন করেছিলেন। যে তিনি সারা বিশ্বে বিখ্যাত হয়েছিলেন।

সর্বত্র আলোচিত হচ্ছে “দিব্যা গোকুলনাথের” নাম ও কাজ। দিব্যা গোকুলনাথ ভারতের সর্বকনিষ্ঠ দ্বিতীয় ধনী ব্যক্তিত্ব হিসেবে ফোর্বসের তালিকায় স্থান পেয়েছেন। “দিব্যা গোকুলনাথ” হলেন ‘বাইজু’ কোম্পানির প্রতিষ্ঠাতা। যার বয়স মাত্র ৩৪ বছর, কিন্তু এই অল্প বয়সেই তিনি ৩.০৫ বিলিয়ন ডলার অর্থাৎ প্রায় ২২.৩ হাজার কোটি টাকার মালিক।

প্রথমে “রবীন্দ্রন বাইজু” ছাত্র হিসাবে টিউশন পড়তে “দিব্যার” কাছে গিয়েছিলেন। পরে দুজনেই বিয়ে করেন এবং একসঙ্গে কোম্পানিকে এগিয়ে নিয়ে যান নতুন উচ্চতায়। “Byju’s” এর সি.ই.ও “বাইজু রবীন্দ্রন”, তার স্ত্রীর পরে ফোর্বসের তালিকায় তৃতীয় সর্বকনিষ্ঠ ভারতীয় বিলিয়নিয়ার। ২০১১ সালে “রবীন্দ্রন ” এই অনলাইন শিক্ষা সংস্থাটি প্রতিষ্ঠা করেছিলেন বলে জানা যায় ।

“দিব্যা” বলেছিলেন যে, ২০০৮ সালে একজন শিক্ষক হিসাবে তার কর্মজীবন শুরু করেছিলেন।প্রাথমিকভাবে তিনি ছাত্রদের কে টিউশন পড়াতেন। তার প্রিয় বিষয়গুলি হল গণিত, ইংরেজি এবং লজিক্যাল রিজনিং। GRE পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়ার পর, তিনি আমেরিকার অনেক বড় বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হন, কিন্তু দিব্যা দেশে থাকতেই “রবীন্দ্রনের” সাথে কাজ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন।

আপনার মতামত লিখুন :